শুক্রবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আইসোলেশন ওয়ার্ডের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিট

সেরাকণ্ঠ ডট কম :
এপ্রিল ১৬, ২০২০
news-image

 করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলার সিদ্ধান্তে ফিরে এসেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। যদিও বার্ন ইউনিটের রোগীদের শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় দুদিন আগেই সিদ্ধান্তটি স্থগিত করা হয়েছিল।

সোমবার (১৫এপ্রিল) বিকেল থেকে ঢামেক হাসাপাতালের বার্ন ইউনিটের রোগীদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে স্থানান্তরের কাজ শুরু হয়েছে। এর আগে ঢামেক কর্তৃপক্ষ বার্ন ইউনিটে করোনাভাইরাসের জন্য আইসোলেশন ওয়ার্ড না খুলতে অনেক চেষ্টা করেন।

ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান অধ্যাপক ডা. বিধান সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান , হাসপাতালের পরিচালকের নির্দেশে সোমবার বিকেল থেকে রোগী স্থানান্তরের কাজ শুরু হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ঢামেক হাসপাতাল বার্ন ইউনিটে ১০০টি শয্যা রয়েছে। সেখানে রোগী আছে প্রায় ৩০০ জন। এতগুলো পোড়া রোগী স্থানান্তর করা খুবই রিস্কের ব্যাপার। এমনকি রোগীদের জন্য খুব কষ্টের। তাই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলাপ করে সেটা স্থগিত করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু সেটা এখন বাতিল হয়েছে। ঢামেক পাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমাদের রোগী স্থানান্তর করতে বলেছে। বার্ন ইউনিটের রোগীদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট নেয়া হচ্ছে।

ঢামেকের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. খান মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, আইসোলেশনে রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সে কারণে স্থগিতের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়েছে। তাছাড়া বার্ন ইউনিটে রোগীর সংখ্যা কমে গেছে। এ কারণে ঢামেক হাসপাতাল বার্ন ইউনিট থেকে রোগীর স্থানান্তর করে ভবনটিকে আইসোলেশন ওয়ার্ড করা হচ্ছে।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের সমন্বয়কারী অধ্যাপক সামন্তলাল সেন জানান , ‘আগের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়েছে। বার্ন ইউনিট থেকে রোগীদের নিয়ে আসা হচ্ছে। তাদের জন্য এখানে দেড়শ বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। এমনকি স্থানান্তর করা রোগীদের চিকিৎসাও শুরু হয়েছে।ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন জানান, রোগী স্থানান্তর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ঢামেক হাসপাতাল বার্ন ইউনিট আইসোলেন ওয়ার্ডের জন্য প্রস্তুত করা হবে।