শুক্রবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

যে কারনে পবিত্র কোরআনে মদ-জুয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছে

সেরাকণ্ঠ ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৯
news-image

কিছুটা উপকার না থাকলে মদের প্রতি মানুষের এতটা আকর্ষণ থাকত না। কিছুটা লাভ না হলে মানুষ জুয়ার প্রতি আসক্ত হতো না। এই চরম বাস্তবতা উপস্থাপনের অতুলনীয় দর্পণ মহাগ্রন্থ আল-কোরআন এদিকে ইঙ্গিত করেছে।

আল্লাহ তায়ালা বলেন, লোকেরা আপনাকে মদ-জুয়া সম্পর্কে প্রশ্ন করে, আপনি বলে দিন, এতে মহাপাপ। যদিও কিছুটা উপকার আছে। কিন্তু উপকারের তুলনায় অপকারই বেশি। (বাক্বারাহ ২১৯)

কিছু সময়ের জন্য হৃদয় আনন্দানুভূতি, নিজেকে মনে মনে রাজার আসেন আসীন করা, ডান-বাম বাহুর দিকে তাকিয়ে নিজেকে বীরবল, শক্তিধর মনে করা, চেহারায় আভিজাত্যের ছাপ ফুটে ওঠা, কৃত্রিম উন্মত্ততায় উগ্র নারী সংশ্রবকে পরম পাওয়া মনে করা মদের উপকারিতার আওতায় পড়ে।

বিনা পরিশ্রমে, স্বল্প সময়ের ব্যবধানে হাজার থেকে লাখপতি, লাখপতি থেকে কোটিপতি হয়ে যাওয়া কার না পছন্দ? কোরআনের এই স্বীকারোক্তিতে আপনি খুশিতে আটখানা হবেন না, কারণ, বাহ্যিক উপকারটুকু উপস্থাপনের পর তার অপকারটা যে চরম তাও কিন্তু কোরআন সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছে।

মাদক মানুষের শারীরিক, পারিবারিক এবং সামাজিক সব অপকারের মূলমন্ত্র হিসেবে কাজ করে।

শারীরিক অপকার

১) মদ পানকারীর খাদ্যের চাহিদা কমে যায় ভীষণভাবে।

২) হজম শক্তি কমে যায় আস্তে আস্তে।

৩) চেহারায় বিকৃতি আসে একটা সময়।

৪) সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে দেহের স্নায়ুগুলোর। প্রাথমিকভাবে স্নায়ুগুলো উত্তেজিত করে দেহে শক্তি বর্ধন করে দেয়। উত্তেজনা প্রশমিত হওয়ার পর এই শক্তি আর স্থায়ী থাকে না। অনেকটা বেলুনের মতো এর উপকার। দেখবেন, বেলুন ফুলানোর আগে কত মসৃণ থাকে, ফোলানোর পর বাতাস ছেড়ে দিয়ে বেলুনের দিকে তাকাবেন, খসখসে হয়ে যায়।

প্রায় একই রকম হয় মদ্যপের অবস্থা। মদ পান করার আগে দেহটা যে সার্ভিস দিত, মদ পানে অভ্যস্ত হওয়ার পর মদ ছাড়া আর এই সার্ভিসটা দেয় না, তখন মদখোড় মদের কাছে অসহায় হয়ে যায়। এই অসহায়ত্বকে আমরা বলি নেশা।

৫) ৪০ বছর বয়সে নিজেকে অকর্মণ্য হিসেবে আবিষ্কার করতে পারে, যেমনটা হয়ে থাকে ষাটোর্ধ্ব বয়স্কদের বেলায়।

৬) বড় রকমের আঘাত পড়ে লিভারে।

৭) কিডনি অকেজো হওয়া নৈমত্তিক ব্যাপার।

৮) যক্ষ্মা রোগ নাকি মদ্যপের অনিবার্য পরিণতি। ইউরোপজুড়ে যক্ষ্মার আক্রমণ নাকি মদপান থেকেই শুরু হয়েছে।

৯) মদপান অবস্থায় জ্ঞান-বুদ্ধি লোপ পায়। এই প্রভাবটা মদপান করার পর দীর্ঘক্ষণ, এমনকি জীবনভর চলতে থাকে।

১০) মদ্যপরা স্বাভাবিক জীবনে আসতে পারে না। কেউ কেউ তো পাগল হয়ে যায়।

১১) মদ রক্তের সঙ্গে মিশে না। আলাদা থেকে যায়। পয়জন হিসেবে জমা হতে থাকে। এক সময় এই জীবাণু রোগ সৃষ্টি করতে এগিয়ে আসে।

১২) মদের প্রথম আক্রমণটা হয় গলা-শ্বাসনালীতে। শ্বাসনালীতে ক্ষতের সৃষ্টি করে।

১৩) ওদের গলার স্বর মোটা হয়ে যায়। অধিকাংশ মদ্যপ চিহ্নিত হয় এই মোটা কণ্ঠস্বরের মাধ্যমে।

১৪) এই অভিশাপ শুধু মদ্যপ নয়, তার সন্তানের ওপর প্রভাব সৃষ্টি করে। মধ্যবিত্তের সন্তানরাও মদ্যপানের প্রতি আগ্রহী হয়।

১৫) এমনকি সন্তান দুর্বলদেহী হয়ে জন্ম নেয়।

১৬) কোনো সন্তান নির্বংশ হয়ে জন্ম নেবে। ওর কোনো সন্তান জন্মাবে না।

১৭) মদ্যপদেরকেই সমাজে পুতুলের সতো উপহাসের পাত্র হিসেবে দেখা হয়।

পারিবারিক অপকার

মদ্যপদের মানবিক মূল্যবোধ হারিয়ে যায়। মানবতা, উদারতা, সামাজিকতা রক্ষা করে চলা তাদের পক্ষে সম্ভব হয় না। এর শুরুটা হয় পরিবার থেকে। স্ত্রীদের সঙ্গে তাদের রুঢ় আচরণ, মাতা-পিতার সঙ্গে দুর্ব্যবহার, পাড়া-প্রতিবেশীদের হুমকি-ধমকি তাদের নৈমত্তিক ব্যাপার।

নেশা করতে যেখান থেকে বাধা আসে তাকেই প্রতিহত করতে তারা দ্বিধাবোধ করে না। সাধারণত এই বাধাটা আসে পরিবার থেকে। এ জন্য মাতা-পিতাকে খুন করা, স্ত্রী-সন্তানকে আঘাত করা তাদের জন্য স্বাভাবিক ব্যাপার।

ড্রাগ এডিক্টেড কন্যা ঐশী কর্তৃক ডিবি অফিসার মাহফুজুর রহমানের হত্যাকাণ্ড এর সুস্পষ্ট উদাহরণ।

এ দেশে স্বল্প আয়ে পরিবার চালান যারা তাদের আমরা হুজুর বলে চিনি। দাম্পত্য কলহের বড় কারণ অভাব। কিন্তু অভাব থাকা সত্ত্বেও হুজুরদের পরিবারে এই কলহ থাকে না। কারণ সেখানে মাদকের উপস্থিতি নেই।

সামাজিক সমস্যা

১) মদপানকারীরা সমাজে মারামারি, হানাহানি, খুনাখুনিতে মজা পায়।

২) যিনা-ব্যাভিচার তাদের প্রথম পছন্দ।

৩) একটা পরিবারের ব্যয় নির্বাহ যে পরিমাণ হয়, একটা মদ্যপের পকেট খরচ এর চেয়ে বেশি প্রয়োজন হয়। এ জন্য নবীজি মদকে সব অশ্লীলতা ও কদর্যতার মূলমন্ত্র বলেছেন।

এক জার্মান ডাক্তার বলেছেন আপনি আমাকে দেশের চলমান সরাবখানার অর্ধেকটা বন্ধ করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিন, আমি আপনাকে অর্ধেক হাসপাতাল ও জেল অপ্রয়োজনীয় হওয়ার প্রতিশ্রুতি দেব।

জুয়ার নেশা মানুষকে চুরি-ডাকাতি, রাহাজানি এমনকি খুনাখুনিতে লিপ্ত করে। এক দিয়ে বহু গুণ পাওয়ার আশায় ওরা হারাতে থাকে সঞ্চিত সব সম্পদ। বিক্রি করতে থাকে স্ত্রীদের গহনাঘাটি। এমনকি জুয়ায় হেরে স্ত্রীকে জুয়ার দানে ধরার উদাহরণ পত্রিকায় আমরা দেখছি।

বর্তমান ক্যাসিনো সংস্কৃতি মদ-জুয়াকে দিয়েছে দুর্ধর্ষ গতি। জুয়ার আধুনিক সংস্করণ ক্যাসিনোর মাধ্যমে গোটা জাতির অর্থ জমা হচ্ছে গুটিকয়েক জুয়াড়ি লকারে। শত শত কোটি টাকা অচল হয়ে পড়ে আছে ওদের গুদামঘরে। এই টাকাগুলো কুক্ষিগত না হলে সচল হয়ে জাতীয় জীবনে অনেক সমৃদ্ধি নিয়ে আসত।

ক্যাসিনো সংস্কৃতির কবলে পড়ে আজ জাতীয় অর্থনীতি হুমকির মুখে। সরকারের বহুবিধ উন্নয়ন ম্লান করে দিয়েছে জুয়াড়িদের এই ক্যাসিনো সংস্কৃতি।

তবে আশার কথা যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শুদ্ধি অভিযান পরিচালনা করছেন। মদ ও জুয়ার আসর ধ্বংসে নামিয়েছেন রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন বাহিনী। দেশকে উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছাতে এর বিকল্প ছিল না। কোনো প্রকার হুমকি-ধমকি যেন এই অভিযান ব্যাহত না হয়।