বৃহস্পতিবার, ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ে ক্ষমা চাইলেন মন্ত্রী

সেরাকণ্ঠ ডট কম :
মে ৩১, ২০১৯
news-image

ঈদে নাড়ির টানে ঘরে ফেরা মানুষদের যাত্রী সেবা শুরুর প্রথম দিনেই শিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে রেলওয়ে। শিডিউলের এ বিপর্যয়ের জন্য যাত্রীদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন রেলমন্ত্রী নুরুন ইসলাম সুজন।

শুক্রবার (৩১ মে) সকাল ১০টায় কমলাপুর রেলস্টেশনে ঈদ উপলক্ষে রেলওয়ের সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শন করতে এসে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন।

রেলমন্ত্রী বলেন, ঈদ উপলক্ষে শুক্রবার ভোর থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত কমলাপুর থেকে ১৮টি ট্রেন ছেড়ে গেছে। তন্মধ্যে ১৪টি ট্রেন নির্ধারিত সময়ে ছেড়ে গেছে। সুন্দরবন, ধূমকেতু ও রংপুর এক্সপ্রেসসহ উত্তরবঙ্গগামী চারটি ট্রেন ছাড়তে দেরি হচ্ছে। রংপুর এক্সপ্রেস সাত ঘণ্টা দেরিতে ছাড়বে। এজন্য রেলপথ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দুঃখ প্রকাশ করছি।

নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, বাংলাদেশে পরিবহনের সক্ষমতার চেয়ে যাত্রী বেশি। অতিরিক্ত সক্ষমতা ব্যবহার করে যাত্রীদের সেবা দিচ্ছে রেলওয়ে। সার্বিকভাবে দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। ঈদের পাঁচদিন যাত্রী পরিবহন করতে সক্ষমতা অনুযায়ী সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি।

দুর্ঘটনা এড়াতে স্টেশনে কোনো মই থাকবে না জানিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, কেউ যদি ছাদে যায়, তাহলে নিজ দায়িত্বে ঝুঁকি নিয়ে যাবে। এতে কোনো অঘটন ঘটলে রেল মন্ত্রণালয় দায় নেবে না। তিনি ছাদে ভ্রমণ থেকে বিরত থাকতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান।

এদিকে নির্ধারিত সময়ের কয়েক ঘণ্টা পরে কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ছাড়ছে বিভিন্ন গন্তব্যের ট্রেন। এ নিয়ে যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

যারা ২২ মে প্রথম দিন আগাম টিকিট কেটেছেন, তারাই শুক্রবার (৩১ মে) বিভিন্ন গন্তব্যে যাত্রা করছেন। এটি এই ঈদে আগাম টিকিটের প্রথম যাত্রা।

কমলাপুর রেলস্টেশনে শুক্রবার (৩১ মে) রাজশাহীগামী ধূমকেতু ভোর ৬টায় ছেড়ে যাওয়ার নির্ধারিত সময় থাকলেও সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত কমলাপুর ছেড়ে যায়নি। চিলাহাটিগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস সকাল ৮টায় নির্ধারিত সময় থাকলেও সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে ছাড়বে বলে সম্ভাব্য সময় দেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রামগামী সোনার বাংলা এক্সপ্রেস সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে ছাড়ার নির্ধারিত সময় থাকলেও কমলাপুর থেকে ছেড়ে যায় সকাল সোয়া ৮টায়। সিলেটগামী পারাবত এক্সপ্রেস সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে ছাড়ার নির্ধারিত সময় থাকলেও ছেড়ে যায় সাড়ে ৭টায়। রংপুর এক্সপ্রেস সকাল ৯টায় কমলাপুর ছাড়ার নির্ধারিত সময় থাকলেও দুপুর ২টা ১০ মিনিটে ছেড়ে যাবে বলে সম্ভাব্য সময় দেওয়া হয়েছে।

৩৩টি নির্ধারিত আন্ত‍ঃনগর ট্রেন ছেড়ে যাবে বিভিন্ন গন্তব্যে কমলাপুর থেকে আর সবকটি ট্রেনেই শিডিউল বিপর্যয় দেখা দেবে, কারণ অধিকাংশ ট্রেনই নির্ধারিত সময়ে ঢাকা পৌঁছাতে পারছে না।

কমলাপুর রেলস্টেশনের ম্যানেজার মোহাম্মদ আমিনুল হক সাংবাদিকদের বলেন, ট্রেন কিছুটা দেরিতে ছেড়ে যাচ্ছে। তবে আমরা চেষ্টা করছি, যাতে নির্ধারিত সময়ে ট্রেন ছেড়ে যেতে পারে।